ভিএমওয়্যার ভিসেন্টার সার্ভার এপ্লায়েন্স ৬ ইন্সটল

বন্ধুরা, ভিসেন্টার ৬ দুই ভাবে ইন্সটল করা যায়। এক হলো উইন্ডোজ ভার্সন, আরেকটি হলো লিনাক্সভিত্তিক এপ্লায়েন্স ভার্সন। উইন্ডোজ ভার্সনে বলাবাহুল্য, আপনার লাগবে একটি উইন্ডোজ সার্ভার, একটি আলাদা এসকিউএল সার্ভার। লিনাক্স এপ্লায়েন্স ভার্সনে সবকিছু বিল্ট-ইন। আলাদা কিছু লাগেনা। অনেকে আজকাল উইন্ডোজ ভার্সন ছেড়ে এপ্লায়েন্সে পরিনত করেছেন কারন এতে মেইন্টেনেন্স কম, আলাদা এসকিউএল লাগেনা এবং সর্বোপরি, ফাংশানে তেমন কোন তফাত নেই। আজকে লিনাক্স ভিত্তিক এপ্লায়েন্স কিভাবে ইন্সটল করা যায় তা নিয়ে লিখছি। vmware ওয়েবসাইটে এ পাবেন ভিসেন্টার এপ্লায়েন্স। আগেই উল্লেখ করেছিলাম ভিসেন্টার টা অপশোনাল। আপনার ল্যবের জন্য ভিসেন্টার লাগবেই, এমন নয়। তবে এটা থাকলে কিছু সুবিধা আছে। ভার্চুয়াল হোস্ট, ভার্চুয়াল মেশিন, ইত্যাদি ম্যনেজ করতে সুবিধে হয়। এটি কিছুটা এক্টিভ ডাইরেক্টরির আদলে তৈরি। যেমন একটিমাত্র ভিসেন্টার দিয়ে অনেকগুলো হোস্ট ম্যনেজ করা যায়। আপনি একটি পলিসি বা সেটিংস চেঞ্জ করলে সেই পরিবর্তন ভিসেন্টারের সকল হোস্টে চলে যাবে। ধরুন আপনাকে আলাদা করে বার বার সেই একি সেটিংস পরিবর্তন করা লাগবেনা।

ভিসেন্টার ৬ এপ্লায়েন্স পাবেন একটি আইসো ফাইল হিসেবে। এর সাইজ প্রায় ৩ গিগ এর মতো। ডাউনলোড করে আইসো ফাইলটি এক্সট্রাক্ট করুন কোথাও। সেখানে দেখবেন প্রায় ৩ মেগাবাইটের ফাইল (vcsa-setup.html)। পছন্দের ব্রাউজারে খুলুন এই ফাইল। এটি মূলত ব্রাউজারভিত্তিক উইজার্ড। লাইসেন্সে এগ্রি করে, আপনি ভার্চুয়াল হোস্টের ইনফরমেশন দিন। এরপর বিভিন্ন তথ্য প্রবেশ করাতে হবে যেমন হোস্ট নেম, আইপি এড্রেস, ডিএনএস, সাবনেট মাস্ক, ইত্যাদি দিতে হবে। আমি স্টেপ বাই স্টেপ তালিকা দিচ্ছিঃ

১। লাইসেন্স এগ্রিমেন্ট

২। এবারে আপনাকে ভার্চুয়াল হোস্টের সাথে যুক্ত হতে হবে। অর্থাৎ এই সার্ভারে আপনি এপ্লায়েন্স ইন্সটল করবেন। এখানে লগিন করুন।

৩। এরপর এপ্লায়েন্সের নামকরন করতে হবে। আমি নাম দিয়েছি vcenter, এরপর ইচ্ছেমত পাসওয়ার্ড পছন্দ করুন। ইউজারনেম root. মনে রাখবেন, এটি হচ্ছে কেবল এপ্লায়েন্সে লগিন করার জন্য। ভিসেন্টারের লগিন আলাদা।

৪। সিলেক্ট ডিপ্লয়মেন্ট টাইপ – আমি বলতে পারি অন্তত ৮০% ক্ষেত্রে এম্বেডেড অপশনটি প্রযোজ্য। বিশাল বড় বিজনেজ হলে বা মস্তবড় আইটি শপ হলে তখন একাধিক ভিসেন্টারের জন্য এক্সটার্নাল অপশন চুজ করা যায়।

৫। সিঙ্গেল সাইন-অন – এখানে থাকবে দুটি অপশন। এক হল নতুন তৈরি, অথবা অন্য আরেকটি ভিসেন্টার এর অধীনে যোগদান করা। সিলেক্ট করুন Create a new SSO domain এবং যথানুযায়ী পাসওয়ার্ড এবং ইউজারনেম লিখুন।

৬। এপ্লায়েন্স সাইজ – আমি টাইনি সিলেক্ট করেছি কারন আমাদের জন্য এটাই বেশি প্রযোজ্য।

৭। এখানে সিলেক্ট করুন কোন ডাটাস্টোরে এই ভার্চুয়াল এপ্লায়েন্স আপলোড হবে। বাম পাশে নিচের দিকে খেয়াল করুন Enable Thin Disk Mode. সেটিও সিলেকট করুন। ব্যখ্যা পরে দেব।

৮। কি ধরনের ডাটাবেস ব্যবহার করবেন? এপ্লায়েন্সে কেবল দু ধরনের ডাটাবেস সাপর্ট রয়েছে। চাইলে এম্বেডেড পোস্টগ্রেস অথবা এক্সটার্নাল ওরাকল ডাটাবেস ব্যবহার করতে পারেন।

৯। এ পর্যায়ে আছে নেটওয়ার্ক কনফিগারেশন। আইপি, ডিএনএস, মাস্ক, গেটওয়ে, ইত্যাদি তথ্য সরবরাহ করুন। এগুলো ছাড়াও এনটিপি সেটিং এবং এসএসএইছ সেটিংস পরিবর্তন করতে পারেন। আমি এসএসএইছ এনেবল করেছি এবং ESXi হোস্ট এর সাথে টাইম সিঙ্ক্রোনাইজেশন করেছি।

১০। সমাপ্ত!

সব ভালোয় ভালোয় হয়ে গেলে কয়েক মিনিট সময় লাগবে এটি আপলোড হতে। সফলভাবে ইন্সটলের পরে ভিসেন্টারে ব্রাউজারের মাধ্যমে লগিন করতে পারেন। মনে রাখবেন, স্টেপ ৫ এ পছন্দ করা লগিন ইনফরমেশন দিয়ে লগিন করতে হবে।

Share with:


Leave a Reply

Connect with:



Your email address will not be published. Required fields are marked *